RSS

গোসলের পানি গরম হলে

05 ডিসে.

গোসলের পানি গরম হলে


গোসল করলে শরীর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়। আমরা সাধারণত ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করেই অভ্যস্ত। তবে গোসলের পানি গরম হলে শরীর তো পরিষ্কার হয়ই, উপরন্তু কিছু বাড়তি সুবিধা পাওয়া যায়।

গোসলের জন্য গরম পানি যদি শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রার কাছাকাছি পর্যায়ের গরম হয় অর্থাৎ ৮৫ থেকে ৯২০ ফারেনহাইট এবং এ রকম গরম পানি দিয়ে ২ থেকে ১৫ মিনিট গোসল করা হয়, তাহলে শরীরের পেশির স্টিফনেস দূর হয়, পেশির নমনীয়তা বাড়ে। লাঘব হয় পেশির ব্যথা। নিয়মিত এ রকম গরম পানিতে গোসল করলে বাতের ব্যথা উপশম হয়। অস্থিসন্ধির ব্যথা কমে, প্রদাহ কমে। পিঠ ও হাঁটুর ব্যথা ভালো হয়। অনেকের মাথাব্যথাও কমে যায়।

গরম পানির প্রভাবে ত্বকের রক্তনালী প্রসারিত হয়। ফলে ত্বকে রক্ত সরবরাহ বাড়ে, ত্বক পুষ্টি পায় ভালো। ত্বকের আণুবীক্ষণিক ছিদ্রগুলো খুলে যায়। ফলে ভেতরকার ময়লা বের হয়ে যেতে পারে। ত্বক পরিষ্কার হয়। ত্বকের আর্দÛতা বাড়ে। ত্বক থাকে বেশ কোমল।

গরম পানির ভাপে নাকের কনজেশন বা নাক বন্ধ হয়ে থাকার ভাব কমে যায়। কমে যায় শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে থাকার ভাবও। নাকের ছিদ্র খুলে যায়, শ্বাসনালী প্রসারিত হয়। গরম পানির গোসলে তাই সাইনোসাইটিসে উপকার পাওয়া যায়। উপকার পাওয়া যায় শ্বাসকষ্টেও।

গরম পানি দিয়ে গোসল করলে ত্বকের রক্তনালী প্রসারিত হয়। ফলে ত্বকে রক্ত সরবরাহ বেড়ে যায়। আর এই বাড়তি রক্ত আসে শরীরের ভেতরকার অংশ থেকেই। ফলে শরীরের ভেতরকার অঙ্গের রক্ত সরবরাহ সাময়িকভাবে কমে যায়। অন্যান্য অঙ্গের মতো মস্তিষ্কের রক্ত সরবরাহও কমে যায় সাময়িকভাবে। মস্তিষ্কের ভার সামান্য লাঘব হয় কিছু সময়ের জন্য। তাই ঘুমের ১৫ মিনিট আগে গরম পানিতে গোসল করলে একটু ভালো ঘুম হয়।

সন্তান প্রসবের পর প্রসূতিকে গরম পানিতে একটু অ্যান্টিসেপটিক দিয়ে গোসলের ব্যবস্থা করলে ত্বকের ছোটখাটো ক্ষতের উপকার হয়। সন্তান প্রসব করানোর জন্য ছোট অপারেশন ইপিসিওটমির পর হিপ বাথ ইনফেকশন প্রতিরোধে সহায়তা করে। অর্শরোগের অপারেশনের পর বা পায়ুপথের ছোটখাটো ক্ষতে সিজ বাথ বা হিপ বাথ ব্যথা নিরাময়ে সহায়ক। ইনফেকশন প্রতিরোধেও কার্যকর। ক্ষত শুকাতেও ভূমিকা রাখে।

এর মানে এই নয় যে শুধু গরম পানিতেই গোসল করতে হবে, তবে বাতের ব্যথা ও পেশির ব্যথা কমাতে গরম পানির গোসলে উপকার পেতে পারেন। উপকার পেতে পারেন ত্বকের আর্দ্রতা বাড়িয়ে ত্বককে কোমল রাখতে। নাকের কনজেশন কমাতে ও সাইনোসাইটিস এবং শ্বাসকষ্টে একটু উপকার পেতে গরম পানিতে গোসলের অভ্যাস করতেই পারেন। অনেক সময় মাথাব্যথা কমাতে কিংবা রাতে একটু ভালো ঘুম পেতে অথবা ছোটখাটো ক্ষতে ইনফেকশন প্রতিরোধেও গরম পানিতে গোসলের অভ্যাসে বেশ উপকার পেতে পারেন।


Advertisements
 
মন্তব্য দিন

Posted by চালু করুন ডিসেম্বর 5, 2010 in সাস্থ্য

 

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

 
%d bloggers like this: