RSS

কে কত হাসতে পারো!!! “একত্রিশ”

23 Jan

কৃপণ

কৃপণ বাপের কৃপণ ছেলে। বাবা মৃত্যুশয্যায়। ছেলেটি ড্রইংরুমে বন্ধুদের সঙ্গে তার পিতার সঙ্গীন অবস্থা নিয়ে আলাপ করছে।
কৃপণ ছেলে : বাবা তো বোধ হয় আর বাঁচবে না। মরলে কী করব?
এক বন্ধু : কেন, সবাই যা করে! লরিতে উঠিয়ে ফুল দিয়ে সাজিয়ে শ্মশানে নিয়ে যাবি।
কৃপণ ছেলে : লরি-ফুল, সে তো অনেক খরচের ব্যাপার!
আরেক বন্ধু : তাহলে পাড়া-প্রতিবেশীদের ডেকে কাঁধে করে নিয়ে যাবি।
কৃপণ ছেলে : তাতেও খরচ আছে। পাড়া-প্রতিবেশীদেরকে শ্রাদ্ধে নিমনতন্ন করে খাওয়াতে হবে।
কৃপণ পিতা : [পাশের রুম থেকে কোঁকাতে কোঁকাতে] অত ভাবিস না রে বাবা। যম এসেছে টের পেলে আমি হেঁটেই শ্মশানে চলে যাব।

স্বর্ণর খাট

মেয়ের বাবাঃ বেয়াই সাহেব আপনি তো বলেছিলেন আপনার ছেলে স্বর্ণর খাটে ঘুমায় কিন্তু এটা তো দেখছি কাঠের?
ছেলের বাবাঃ ঠিকই দেখছেন। এটা আমার বড় মেয়ে স্বর্ণর খাট। মেয়েটার বিয়ে হয়ে যাওয়ায় এই খাটে আমার ছেলেই ঘুমায়।

পরিবর্তন

পথচারীঃ এই মিথ্যুক! তুমি তো অন্ধ নও। তুমি অন্ধ সেজে ভিক্ষা করছ কেন?
ভিক্ষুকঃ ঠিকই ধরেছেন স্যার। যে অন্ধ সে আজ ছুটিতে গেছে। তার জায়গায় আমার ডিউটি পড়েছে। আসলে আমি বোবা।

যৌতুক

১ম ভিক্ষুকঃ এই মিয়া তুমিনা আগে রেল স্টেশনে ভিক্ষ করতা। এইখানে আইছ কেন?
২য় ভিক্ষুকঃ ওই জায়গাডা মেয়ের জামাইরে যৌতুক দিছি।

দান

সাহায্য দাতাঃ দশ টাকা দিচ্ছি দোকান থেকে কিছু কিনে খেও। ঠিক আছে, কিন্তু তোমার এ দশার কারণ কি?
সাহায্য প্রার্থীঃ আমিও আপনার মত ছিলাম কিনা। যে চাইত তাকেই দিয়ে দিতাম।

ভিক্ষুক

ভিক্ষুকঃ স্যার, দয়া করে আমাকে একটা টাকা দেন।
পথচারীঃ নেই।
ভিক্ষুকঃ তাইলে আট আনা পয়সা দিন।
পথচারীঃ বললাম তো নেই।
ভিক্ষুকঃ তাইলে স্যার আমার সাথে নাইমা পড়েন।

 
মন্তব্য দিন

Posted by চালু করুন জানুয়ারি 23, 2011 in কৌতুক ও রম্য গল্প

 

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

 
%d bloggers like this: